December 13, 2018

addnavunder

যেসব কারণে অজু ভেঙে যায়

যেসব কারণে অজু ভেঙে যায়

 

নিম্নে উল্লিখিত বিষয়গুলোর যেকোনো একটি পাওয়া গেলে অজু ভেঙে যায়—

♦ প্রস্রাব-পায়খানার রাস্তা দিয়ে কোনো কিছু বের হলে। (সুরা : মায়েদা, আয়াত : ৬)

♦ শরীরের কোনো স্থান থেকে রক্ত বা পুঁজ বের হয়ে গড়িয়ে পড়লে। (দারাকুতনি, হাদিস : ৫৮১)

♦ মুখ থেকে রক্ত বের হলে, যদি রক্তের পরিমাণ থুথু থেকে অধিক অথবা সমান হয়। (মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা : ১/১২৫)

♦ খানা, পানি, জমাটবদ্ধ রক্ত, পিত্ত ইত্যাদির বমি মুখ ভরে হলে। (তিরমিজি, হাদিস : ৮০, কিতাবুল আসার লি আবি ইউসুফ : ৩৪)

♦ ঘুমালে। (আবু দাউদ, হাদিস : ১৭৫)

♦ বেহুঁশ হয়ে গেলে। (বুখারি, হাদিস : ৬৪৬)

♦ মাতাল হলে। (তিরমিজি, হাদিস : ৭২)

♦ নেশাগ্রস্ত হলে। (প্রাগুক্ত)

♦ জাগ্রত অবস্থায় বালেগ লোক রুকু-সিজদাওয়ালা নামাজে অট্টহাসি দিলে। (বুখারী : ১৬/৩১৫)

যেসব কারণে অজু ভাঙে না

নিম্নল্লিখিত বিষয়গুলোতে অজু ভেঙে যায়, এমন বিষয়ের সাদৃশ্য। কিন্তু তা দ্বারা অজু নষ্ট হয় না।

♦ যদি রক্ত বের হয়; কিন্তু নিজের স্থান থেকে গড়িয়ে পড়ে না। (মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা : ১/১৩৭)

♦ যদি শরীরের গোশত ঝরে পড়ে; কিন্তু রক্ত বের না হয়। যেমন—ইরকে মাদানি। এটা এক ধরনের ফোসকা বিশেষ, যা চামড়ার উপরিভাগে ওঠে এবং একসময় তা গোশতসহ শরীর থেকে ঝরে পড়ে; কিন্তু সাধারণত রক্ত বের হয় না। কারণ যেসব বস্তুর কারণে অজু ভেঙে যায়, সেগুলো হয়তো নিজেই নাপাক অথবা নাপাক বস্তুর সঙ্গে লেগে আসার কারণে নাপাক হয়ে থাকে; কিন্তু গোশত পাক। তাই গোশত ঝরে পড়লে অজু ভাঙে না। যদি এর সঙ্গে রক্তও প্রবাহিত হয়, তাহলে প্রবাহিত রক্তের কারণে অজু ভেঙে যাবে। (দারাকুতনি : ৫৮১, ৫৯১, শরহে বেকায়া : ১/৩৭)

♦ কোনো ক্ষত স্থান অথবা কান থেকে পোকা বের হলে। (মুসান্নাফে আবদির রাজ্জাক : ১/৬২৯)

♦ যদি বমি হয়, কিন্তু তা মুখ ভরে না হয়। (আল আসার লি আবি ইউসুফ : ৩৪)

♦ কফমিশ্রিত বমি হলে। কারণ কফ বের হওয়াকে ইসলামের পরিভাষায় ‘হাদাস’ বলা হয় না। ‘হাদাস’ হলেই অজু ওয়াজিব হয়, অন্যথায় নয়। (মুসনাদে আহমদ, হাদিস : ৯৩০১)

♦ নামাজরত ব্যক্তির ঘুমের দরুন অজু ভাঙে না। চাই তা দাঁড়ানো অবস্থায় হোক অথবা বসা, রুকু বা সিজদা অবস্থায় হোক। (সুনানে কুবরা লিল বায়হাকি, হাদিস : ৬০৯)

♦ নিতম্বদ্বয় জমিতে ঠেসে লেগে থাকা অবস্থায় ঘুমিয়ে পড়লে। (আবু দাউদ, হাদিস : ১৭২)

♦ নিজের লজ্জা স্থান স্পর্শ করলে। (নাসায়ি, হাদিস : ১৬৫)

♦ নারীর শরীর স্পর্শ করলে। (নাসায়ি, হাদিস : ১৭০)

♦ ঘুমের ঘোরে নাক ডাকলে। (মুআত্তা মালেক, হাদিস : ৩৬)

এসব কারণে অজু ভাঙে না।

লেখক : শিক্ষক, মাদরাসাতুল মদিনা, নবাবপুর, ঢাকা।

addnavunder

Related posts

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Headerbaner