রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণেই খালেদা জিয়া চিকিৎসাবঞ্চিত : ফখরুল

Breaking News: প্রধান সংবাদ বাংলাদেশ রাজনীতি

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণেই বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা করতে দিচ্ছে না সরকার। তিনি অভিযোগ করেন, যেখানে প্রত্যেক সাধারণ নাগরিকেরই অধিকার রয়েছে সুচিকিৎসা পাওয়ার, সেখানে তিন তিনবারের প্রধানমন্ত্রী নিজেই তার চিকিৎসার সুযোগ পাচ্ছেন না। এটা অন্যায় ও অমানবিক। চিকিৎসার অভাবে বেগম খালেদা জিয়ার কিছু হলে এর দায়ভার সরকারের উপরেই বর্তাবে বলেও তিনি সতর্ক করে দেন।

বেগম জিয়ার চাহিদা অনুযায়ী যেকোনো হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নেয়ার সুযোগ দেয়ার জন্য তিনি সরকারের কাছে জোর দাবি করেন।

আজ বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসার দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধনে মির্জা ফখরুল এ কথা বলেন।

মানববন্ধনে কয়েক হাজার নেতাকর্মী উপস্থিত হয়ে তাদের প্রিয় নেত্রীর মুক্তি ও চিকিৎসার দাবিতে শ্লোগান দিতে থাকেন। হাতে প্লেকার্ড ও ব্যানার নিয়ে প্রেসক্লাবের সামনের রাস্তায় অবস্থান নেন তারা। এক পর্যায়ে মানববন্ধন রূপ নেয় সমাবেশের।

মানববন্ধনে আরো বক্তব্য রাখেন, দলের স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, ড. মঈন খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, শামসুজ্জামান দুদু, গণস্বাস্থ্য ট্রাস্টির চেয়ারম্যান ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, খায়রুল কবির খোকন, আমানুল্লাহ আমান, আবদুস সালাম, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, মির্জা ফখরুল প্রমুখ।

খালেদা জিয়া নাইকো দুর্নীতি মামলা জেলে রয়েছেন। তার মামলার জব্দকৃত আলামত, সিডি ও অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের কপি চেয়ে আবেদন করেন। আদালত এ বিষয়ে ‘আদেশ পরে দেবেন’ বলে জানান। আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য ১২ ফেব্রুয়ারি (মঙ্গলবার) দিন ধার্য করেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, কানাডীয় প্রতিষ্ঠান নাইকোর সঙ্গে অস্বচ্ছ চুক্তির মাধ্যমে রাষ্ট্রের আর্থিক ক্ষতিসাধন ও দুর্নীতির অভিযোগে খালেদা জিয়াসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর তেজগাঁও থানায় নাইকো দুর্নীতি মামলাটি করেন।

মামলার পরের বছরের ৫ মে খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। পরে আসামিদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের প্রায় ১৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতির অভিযোগ আনা হয়।

এ মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ আসামি হলেন ১১ জন। মামলার অন্য আসামিরা হলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সি এম ইউছুফ হোসাইন, বাপেক্সের সাবেক মহাব্যবস্থাপক মীর ময়নুল হক, বাপেক্সের সাবেক সচিব মো. শফিউর রহমান, ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, বাগেরহাটের সাবেক সংসদ সদস্য এম এ এইচ সেলিম এবং নাইকোর দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট কাশেম শরীফ।

Spread the love

1 thought on “রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণেই খালেদা জিয়া চিকিৎসাবঞ্চিত : ফখরুল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *