পুঁজিবাজারে কারা লাভবান হচ্ছেন?

মতামত

শামসুল হক:

পুঁজিবাজারে অনেকেই বিনিয়োগ করে থাকনে। এর কারণও রয়েছে বটে, অনেকেই মনে করেন, এই পুুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করলে খুব সহজেই লাভবান হওয়া যায়। এক অর্থে এর সত্যতা আছে আবার এক অর্থে নেই। কেনো পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করবেন বা অন্য খাত ছেড়ে পুঁজিাবাজরে বিনিয়োগ করবেন তা আগেই ঠিক করতে হবে। জেনে শুনে আপনি বিনিয়োগ করুন তা হলে আপনাকে হতে হবে নিঃস্ব বা পথের ভিখারি। কারা পুুঁজিবাজরে বিনিয়ো হ করবেন এটা আগে ভাবতে হবে। কোন টাকা দিয়ে বিনিেয়োগ করবেন এটাও ভাবতে হবে।
বেশ কিছু দিন থেকে দেখা যাচ্ছে পুঁজিবাজরে একটা স্থিতিশীল অবস্থা। এ অবস্থা থাকা বাজারের জন্য ভালো। আর হঠাৎ যেমন পুঁজিবাজরে উত্থান ভালো নয়। কারণ হঠাৎ করে আবার তা পড়ে যেতে পারে। এেতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েন ক্ষুদ্র বিনিয়েিাগ কারীরা।

গত বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কোথায় বিনিয়োগ করতে যাচ্ছেন তার সব তথ্য জেনে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করবেন। কারণ, কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হোক সেটা আমরা চাই না। তিনি বলেন, আপনারা যাই করেন না কেন গালিটা খেতে হয় সরকারের। তাই কারো কথায় প্ররোচিত হয়ে নয়, নিজে জেনে বুঝে পদক্ষেপ নিতে হবে। না বুজে বিনিয়োগ করা ঠিক নয়।

সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের রজতজয়ন্তী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এ অনুষ্ঠান হয়।

পুঁজিবাজারে সতর্ক হয়ে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়ে তিনি আরও বলেছেন, সীমা রেখেই পা ফেলতে হবে। খুব বেশি যেন লোভে পড়ে না যান। তা হলে কেউ ক্ষতিগ্রস্থ হবেন না সেটাই আমার অনুরোধ থাকবে।

প্রধানমন্ত্রী এ সময় বলেন, কমিশন ও সহায়তাকারী পুঁজিবাজার বিকাশে যে ধারা বজায় রেখেছে তা অব্যাহত রাখতে হবে। যার ফলে তার ধারা আরো গতিশীল হবে।

আওয়ামী লীগ সরকার পুঁজিবাজার বিকাশে ভবিষ্যতেও সহায়তা দেবে বলে আশ্বাস দেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, আমরা কারো কাছে হাত পেতে চলতে চাই না, আমরা নিজের পায়ে দাঁড়াতে চাই।

প্রধানমন্ত্রী স্পস্ট করে বলে দিয়েছেন, জেনে-শুনে বিনিয়োগ করুন। হুজুগে কোনো বিনিয়োগ করবেন না। বিনিয়োগ করে অনেকেই নিঃস্ব হয়ে পড়েন। কিন্তু জেনে শুনে বুঝে বিনিয়োগ করলে এ ধরনরে সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে।
বিনিয়োগ করার জন্য পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা পুুঁজিবাজারে অন্তভূক্ত প্রতিষ্ঠানের ক্যাটাগরি করে দিয়েছেন। এসব ক্যাটারি থেকে অনুমনা করা যায় কোন প্রতিষ্ঠান ভালো মন্দ। অনকেই এমন কিছু প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করেন আসলে সেই সব প্রতিষ্ঠানের অস্তিত্বই তেমন নেই। বিনিয়োগ করার আগে
ওই প্রতিষ্ঠানের সম্পর্কে খোঁজ নিতে হবে। আসলে তারা ধরনের ব্যবসা করেন। পুঁজিাবারে বিনিয়োগ করা অর্থ এই নয় কিছু দিন পর আরেকজনের কাছে শেয়ার বিক্রি করে দিয়ে মুনাফা নেওয়া।

পুুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করলে আপনাকে দীর্ঘ সময়ের জন্য বিনিয়োগ করতে হবে। যাতে ওই প্রতিষ্ঠান ব্যবসা করে আপনাকে মুনাফা দিতে পারে। এছাড়া আপনিও ওই প্রতিষ্ঠানের শেয়ার কেনার মাধ্যমে তার মালিকানার অংশ হলেন। এ জন্য ওই প্রতিষ্ঠানের মুনাফার জন্য আপনাকে ভাবতে হবে। আর যেসব প্রতিষ্ঠান আপনি বিনিয়োগ করবেন তার নিয়ম-কানুন জেনে আপানকে বিনিয়োগ করতে হবে।
সব কিছু জানার পর আপনি বিনিেয়োগ করবেন। তা না করে শুধু অন্য কারো কথায় না বুজে বিনিয়োগ করে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন কেনো।

পুঁজিবাজরে বিনিয়োগ করতে হলে আপনাকে বাড়তি অথ দিয়ে বিনিয়োগ করতে হবে। আপনি জমি বা স্ত্রীর গহনা বিক্রি করে বা অন্যের কাছ ঋণ নিয়ে বিনিয়োগ করতে পারেন না। এ ধরনের বিনিয়োগে আপনি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারেন। আপনার বছর শেষে হাতে যে অর্থ আছে তা বিনিয়োগ করতে পারেন। এতে যদি আপনি ক্ষতিগ্রস্ত হন তাহলেও আপনি ভেঙে পড়বে না। কারণ আপনার চলার মতো ওয়ে রয়েছে।

এছাড়াও পুুঁজিবার সংশ্লিষ্টদেরও ভূমিকা রাখতে হবে। যারা বিনিয়োগ করছেন তাদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা। আর যেসব প্রতিষ্ঠান পুঁজিবাজারে যুক্ত তারা যাতে কোনো ধরনের ছলচাতুরির আশ্রয় নিতে না পারে সেদিকে নজর দেওয়া।
আইনি ব্যবস্থাকে আরও শক্তিশালী করা। যারা পুুঁজিবাজার ক্ষতিগ্রস্ত করতে চায় তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া। এছাড়াও সরকার বা নিয়ন্ত্রক সংস্থা এ বাজারে গতিশীলতা আনতে বড় ধরনের ভূমিকা পারন করবে, এমনটাই প্রত্যাশা থাকলো।

লেখক : সাংবাদিক।

Spread the love

2 thoughts on “পুঁজিবাজারে কারা লাভবান হচ্ছেন?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *