তিউনিসিয়ায় নৌকাডুবিতে নিহত ৬০ জনের অধিকাংশই বাংলাদেশি

Breaking News: জাতীয় প্রধান সংবাদ বাংলাদেশ

লিবিয়া থেকে ইতালি যাওয়ার পথে নৌকাডুবিতে নিহতদের অধিকাংশই বাংলাদেশের নাগরিক বলে জানা গেছে। এই নৌকাডুবিতে প্রায় ৬০ জন নিহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।
বৃহস্পতিবার ভূমধ্যসাগরে এ দুর্ঘটনা ঘটে। রেড ক্রিসেন্টের বরাত দিয়ে দেশটির সংবাদ সংস্থাগুলো এমন তথ্য দিচ্ছে।

বেঁচে যাওয়া লোকজন তিউনিসিয়ার বলে জানা গেছে। গভীর রাতে লিবিয়ার উপকূল থেকে ৭৫ জন অভিবাসী একটি বড় নৌকায় করে ইতালির উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। কিন্তু পথে তাদের নৌকাডুবি ঘটে, এতেই এই হতাহতের খবর পাওয়া যায়।

গভীর সাগরে তাদের বড় নৌকাটি থেকে অপেক্ষাকৃত ছোট একটি নৌকায় তোলা হলে কিছুক্ষণের মধ্যে সেটি ডুবে যায়।

তিউনিসিয়ার রেড ক্রিসেন্ট কর্মকর্তা মঙ্গি স্লিমকে উদ্ধৃত করে বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, রাবারের তৈরি ‘ইনফ্লেটেবেল’ নৌকাটি ১০ মিনিটের মধ্যে ডুবে যায়।

তিউনিসিয়ার জেলেরা ১৬ জনকে উদ্ধার করে শনিবার সকালে জারযিজ শহরের তীরে নিয়ে আসে। উদ্ধার হওয়া অভিবাসীরা জানায়, ঠাণ্ডা সাগরের পানিতে তারা প্রায় আট ঘণ্টা ভেসে ছিল।

উদ্ধার হওয়া ১৬ জনের ১৪ জনই বাংলাদেশি। ত্রিপলিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শেখ সিকান্দার আলী জানান, তারা দুর্ঘটনার কথা জানেন এবং তিউনিসিয়ার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ চলছে।

তিনি বলেন, যত দ্রুত সম্ভব তারা জারযিজে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। সড়কপথে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না বলে তাদের আকাশপথে যেতে হবে।

বেঁচে ফেরা অভিবাসীরা জানান, নৌকাটিতে ৫১ জন বাংলাদেশি ছাড়াও তিনজন মিশরীয় এবং মরক্কো, শাদ এবং আফ্রিকার অন্যান্য কয়েকটি দেশের নাগরিক ছিল।

এদিকে জানা গেছে, তিউনিসার এই নৌকাডুবিতে সিলেটের চারজন মারা গেছেন। তাদের বাডিড়তে চলছে এখন মাতম। সিলেটের ওইসব এলাকায় মানুষ এখন শোকে কাতর।

তথ্যসূত্র: বিবিসি

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *