December 13, 2018

addnavunder

দ্বিতীয় দিন শেষে চালকের আসনে বাংলাদেশ

দ্বিতীয় দিন শেষে চালকের আসনে বাংলাদেশ

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচের দ্বিতীয় দিন শেষে চালকের আসনে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করে ৫০৮ রান করে। আর এর জবাবে নেমে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানরা বাংলাদেশের বোলারদের সামনে দাঁড়াতে পারেনি। দ্বিতীয় দিন শেষে পাঁচ উইকেট হারিয়ে ৭৫ রান সংগ্রহ করেছে সফরকারীরা।

বাংলাদেশের থেকে তারা পিছিয়ে আছে ৪৩৩ রানে। ফলোঅন এড়াতে হলেও তাদের করতে হবে কমপক্ষে ৩০৯ রান। অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ২টি এবং মেহেদী মিরাজ ৩ উইকেট নিয়েছেন।

প্রথম ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমেই বাংলাদেশের ঘূর্ণি আক্রমণের মুখে পড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। চার স্পিনার নিয়ে খেলতে নামা বাংলাদেশের হয়ে দুই দিক দিয়ে বোলিংয়ের সূচনা করেন সাকিব এবং মিরাজ। ইনিংসের প্রথম ওভারেই স্কোরবোর্ডে কোনো রান যোগ হওয়ার আগে অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের চোখ ধাঁধানো এক ঘূর্ণিবলে বোল্ড হয়ে যান উইন্ডিজ অধিনায়ক ব্র্যাথওয়েট (০)। পঞ্চম ওভারে বোলিংয়ে এসে অপর ওপেনার কাইরয়ন পাওয়েলকে (৪) বোল্ড করে দেন মেহেদী মিরাজ।

দুই স্পিনার এরপর যেন পাল্লা দিয়ে উইকেট নিতে থাকেন। সুনিল অ্যামব্রিসকে (৭) বোল্ড করে দ্বিতীয় শিকার ধরেন সাকিব। পরের ওভারেই মেহেদী মিরাজের ঘূর্ণিতে বোল্ড হয়ে যান রোস্টন চেইস (০)। তরুণ অফ স্পিনার তৃতীয় শিকার ধরেন ১ বাউন্ডারিতে ১০ রান করা শাই হোপকে বোল্ড করে। ২৯ রানে অর্ধেক শেষ হয়ে যায় উইন্ডিজের। তরুণ নাঈম হাসানের বলে হেটমায়ারকে এলবিডাব্লিউ ঘোষণা করেন আম্পায়ার। কিন্তু রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান এই মারকুটে ব্যাটসম্যান।

শেষ পর্যন্ত আর কোনো উইকেট না হারিয়ে ৭৫ রান তুলে দিন শেষ করে উইন্ডিজ। শেমরন হেটমায়ার ৩২* এবং শন ডারউইচ ১৭* রানে অপরাজিত আছেন।

এর আগে ঢাকা টেস্টের দ্বিতীয় দিনে আজ শনিবার নিজেদের প্রথম ইনিংসে ৫০৮ রানে রানের পাহাড় গড়ে অল-আউট হয় বাংলাদেশ। ক্যারিয়ারে তৃতীয়বারের মতো তিন অংকে পা রাখা মাহমুদউল্লাহ ১৩৬ রানের দুর্দান্ত ইনিংস উপহার দেন। সর্বশেষ তিন টেস্টে এটা তার দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। হাফ সেঞ্চুরি করেন অধিনায়ক সাকিব (৮০), অভিষিক্ত সাদমান (৭৬) এবং লিটন দাস (৫৪)।

দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরুর প্রথম ঘণ্টাতেই সাকিব আল হাসানকে হারায় বাংলাদেশ। ক্যারিয়ারের ৬ষ্ঠ সেঞ্চুরি মিস করা অধিনায়ক কেমার রোচের বলে শাই হোপের তালুবন্দি হওয়ার আগে খেলেন ১৩৯ বলে ৬ বাউন্ডারিতে গড়া ৮০ রানের অতি গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস। সাকিবের বিদায়ের সঙ্গে ভাঙে ১১১ রানের দুর্দান্ত ৬ষ্ঠ উইকেট জুটি।

লিটন দাস ৫০ বলে ৮ চার ১ ছক্কায় তুলে নিয়েছেন ক্যারিয়ারের ৪র্থ হাফ সেঞ্চুরি। তবে ব্র্যাথওয়েটের বলে বোল্ড হয়ে ৫৪ রানেই থামতে হয় তাকে। ভাঙে ৭ম উইকেটে ৯২ রানের অসাধারণ এক জুটি। ১৮ রান করে মেহেদী মিরাজ ওয়ারিক্যানের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন। তবে তাকে ফেরাতে রিভিউ নিতে হয়েছে উইন্ডিজকে।

এরপর তাইজুলের সঙ্গে ৫৬ রানের জুটি গড়েন মাহমুদউল্লাহ। আউট হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ২৪২ বলে ১০ বাউন্ডারিতে ১৩৬ রানের ঝকঝকে ইনিংস। যা বাংলাদেশকে এনে দেয় বড় সংগ্রহ। এতে তাইজুল (২৬) এবং নাঈমের (১২*) অবদানও আছে। উইন্ডিজের ওয়ারিক্যান, কেমার রোচ, দেবেন্দ্র বিশু আর ব্র্যাথওয়েট ২টি করে উইকেট নিয়েছেন।

এর আগে গতকাল শুক্রবার প্রথম দিনশেষে ৫ উইকেটে ২৫৯ রান তুলেছিল টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ। সৌম্য ১৯, মুমিনুল ২৯, মিঠুন ২৯, মুশফিক ১৪ রান করে আউট হন। প্রথম দিনে সেঞ্চুরি মিস করেন অভিষিক্ত সাদমান ইসলাম। ১৯৯ বলে ব্যক্তিগত ৭৬ রানে প্যাভিলিয়নে ফিরেন তিনি।

addnavunder

Related posts

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Headerbaner