মাশরাফির ডাবল সেঞ্চুরি

Breaking News: ক্রিকেট খেলা প্রধান সংবাদ

সাতবার অস্ত্রোপচারের পরও টাইগারদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন নিয়মিতই। বারবারই প্রমাণ দিয়েছেন তিনি এখনও ফুরিয়ে যাননি। এভাবেই আজ অন্যরকম এক সেঞ্চুরির দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে মাশরাফি বিন মুর্তজা।

আজ মাশরাফি ডাবল সেঞ্চুরি করবেন-এটি নিশ্চিতভাবে বলা যায়। দুপুরের উলম্ব সূর্য তীর্যক হওয়ার আগেই সেঞ্চুরি করবেন তিনি। আজ মাশরাফি খেলতে যাচ্ছেন ক্যারিয়ারের ২০০তম একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ।

অথচ ক্যারিয়ার তাকে এতদূর নিয়ে আসবে কিনা সেটিই অনিশ্চিত ছিল একসময়। বারবার ইনজুরি পথের কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন, হাঁটুতে আবার আঘাত পেলে হুইলচেয়ারে বন্দি থাকতে হবে চিরতরে তাকে।

সে কথাকেও বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ২২ গজে দাপুটে বল করে যাচ্ছেন এ স্কিপার। দলকে নেতৃত্ব দিয়ে জিতিয়েছেন অনেক ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টি সিরিজ।

আহত হাঁটুতে ক্যাপ পরে খেলছেন, কখনও খেলার বিরতিতে ড্রেসিংরুমে সিরিঞ্জ দিয়ে হাঁটু থেকে পানি বের করে আবারও মাঠে নেমেছেন। এভাবেই আজ দ্বিশতক ওয়ানডে ম্যাচ খেলতে মাঠে নামছেন তিনি। সে হিসাবে বিশ্বের আর সব ক্রিকেটারের চেয়ে মাশরাফি একটি স্যালুট বেশিই পেতে পারে।

২০০১ সালে ২৩ নভেম্বর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের বিস্ময় বালক ছিলেন মাশরাফি। কোনো বাংলাদেশি বোলার যে ঘণ্টায় ১২০ কিলোমিটার গতিতে বল করতে পারে, সেটি বিশ্বকে প্রথম জানিয়েছিলেন এই নড়াইল এক্সপ্রেস।

এর পর কেটে গেছে দীর্ঘ দেড় যুগ। এখন পর্যন্ত ১৯৯টি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে মাঠে নেমে পেয়েছেন ২৫২ উইকেট। ক্যারিয়ারের সেরা বোলিং ফিগার ২৬ রান দিয়ে ৬ উইকেট। ২০০৬ সালে কেনিয়ার বিপক্ষে নাইরোবিতে তার এ কীর্তি।

সাতবার পাঁচ উইকেটের হাতছানি এসেছিল মাশরাফির সামনে, যেগুলো চারেই থেমে যায়। দলের প্রয়োজনে ব্যাট হাতেও মারকুটে ক্যামিও ইনিংস খেলার রেকর্ড আছে মাশরাফির। টেলএন্ডার হিসেবে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে দলের স্কোর দ্রুতগতিতে এগিয়ে নিয়েছেন বহুবার।

আজ মিরপুরে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে খেলার দ্বিশতক পূরণ করবেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। কিন্তু এমন উৎসবের আবহের মাঝেই বাজছে বিদায়ের সুর। প্রশ্ন ঘরের মাটিতে এটিই কি মাশরাফির শেষ ওয়ানডে সিরিজ?

২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপের আগে দেশের মাটিতে আর কোনো ওয়ানডে সিরিজ না থাকায় ধরে নেয়া হচ্ছে- আপনালয়ে এটিই মাশরাফির শেষের শুরু। ক্যারিয়ারের ঠিক ২০০তম ওয়ানডে ম্যাচে মাঠে নামার আগে অনেকবারই সেই প্রশ্নটি শুনতে হল বাংলাদেশ অধিনায়ককে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *