‘জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট: রায় সবাইকে মানতে হবে’

প্রধান সংবাদ রাজনীতি

আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়ার পক্ষে বা বিপক্ষে যে রায় ঘোষণাই হোক তা সবাইকে মেনে নেওয়ার আহবান জানিয়েছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তিনি বলেন, আমিও খালেদা জিয়ার সময় বিভিন্ন মামলার রায় মেনে নিয়েছিলেন, এ রায়ও সবাইকে মেনে নিতে হবে। বৃহস্পতিবার দুপুরে সিলেটে হজরত শাহজালালের (রহ.) মাজার জিয়ারত শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রসঙ্গত, ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় রায় ঘোষণার দিন ধার্য আছে। মামলার প্রধান আসামি বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া।

এরশাদ বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নয়, সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন চায় জাতীয় পার্টি। আমরা আওয়ামী লীগের সজোটে নেই। ভবিষ্যতে কী হবে, সেটা ভবিষ্যৎ বলে দেবে।

তিনি বলেন, নেতৃবৃন্দ নিয়ে সিলেট এসেছি বাবা শাহজালালের দরবারে দোয়া নিতে। প্রতিবার এটা আমরা করি। উনার দোয়া নিয়ে আগামীকাল শনিবার থেকে আমরা নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করব। আশা করি, উনি আমাদের দোয়া কবুল করবেন।

নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী সংখ্যা নিয়ে তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি আগামী নির্বাচনে ৩০০ আসনেই প্রার্থী প্রস্তুত রেখেছে। জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচন করব কিনা, বা কয়টি আসনে প্রার্থী দেবো, সেটা নির্ভর করবে নির্বাচনকালীন রাজনৈতিক পরিস্থিতির ওপর।

এক প্রশ্নের জবাবে সাবেক রাষ্ট্রপতি বলেন, জাতীয় পার্টি গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে বলেই আমরা ৯০ সালে ক্ষমতা হস্তান্তর করেছিলাম। আশা করেছিলাম নির্বাচনে সরাসরি অংশ নেবো। কারণ প্রতিবাদ জানানোর ভাষাই হচ্ছে নির্বাচন। কিন্তু আমাকে বন্দী করে রাখা হলো। আমার পরিবারের সদস্যদেরও বন্দী করা হলো। কারাগারে থেকেই আমি নির্বাচন করেছি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- জাপা মহাসচিব রুহুম আমীন হাওলাদার এমপি, জাপার কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের, প্রেসিডিয়াম সদস্য বন ও পরিবেশমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ, স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙা, বিরোধীদলীয় হুইপ মো. সেলিম উদ্দিন এমপি, ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া এমপি প্রমুখ।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *