December 13, 2018

addnavunder

যে কারণে জরায়ু মুখে ক্যান্সার হয়: ডা. কাজী ফয়েজা অাক্তার

যে কারণে জরায়ু মুখে ক্যান্সার হয়: ডা. কাজী ফয়েজা অাক্তার

জরায়ু মুখের ক্যান্সারের জন্য অন্যতম দায়ী এইচপিভি ভাইরাস। এই ভাইরাসের অনেকগুলো টাইপ অাছে। অামাদের যে ভ্যাকসিন তা সর্বোচ্চ চারটা টাইপের বিরুদ্ধে কাজ করে। বাকি যে টাইপগুলো অাছে তার বিরুদ্ধে কিন্তু ভ্যাকসিন কাজ করেনা। কাজেই কারো যদি এইচপিভি ভাইরাসের চারটা ধরণ ছাড়া অন্য কোন ধরণ দিয়ে অাক্রমণ করে তাহলে কিন্তু ভ্যাকসিন কাজ করেনা। তার মানে ভ্যাকসিন শতভাগ প্রতিরোধকারী তা কিন্তু নয়। অর্থাৎ ভ্যাকসিন নিলে তার অার কখনো জরায়ু মুখের ক্যান্সার হবেনা এমন ধারণা ঠিক নয়।

যেসব ক্ষেত্রে স্বামী- স্ত্রী বা নারী পুরুষের একাধিক যৌনসঙ্গী অাছে বা খুব অল্প বয়সে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করেছে তাদের অামরা কনডম ব্যবহার করতে বলি। একমাত্র এই পদ্ধতির মাধ্যমেই এই ভাইরাসটাকে প্রতিরোধ করা যায়।

জরায়ুর মুখের ক্যান্সারের প্রাথমিক পর্যায়ে ক্যান্সার ধরা পড়ে তাহলে লোকাল কিছু থেরাপী দিয়ে যেটাকে অামরা বলি ‘হট থেরাপী’। বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে এই থেরাপী দেওয়ার ব্যবস্থা অাছে। অর্থাৎ ঐ জায়গাটাকে পুড়িয়ে জীবানুটাকে ধ্বংস করে দেওয়া। এটাকে ‘ক্রায়ো’ বলে। এছাড়া যদি ক্যান্সার হয়েই যায় সেক্ষেত্রে পুরো জরায়ুটাকে ফেলে দিতে হবে। এটা বিশেষ ধরনের জরায়ুর অপারেশন যার ফলে জরায়ু ও অাশে পাশের সম্ভাব্য এলাকা ফেলে দিতে হয়। শুধু অপারেশন করলেই সমাধান হয়না। পরবর্তীতে রেডিওথেরাপী দিতে হয়। ফুল কোর্স রেডিও থেরাপী দেওয়ার পরেও কিন্তু সারাজীবন ফলোঅাপ- এ থাকতে হয়। সারা জীবন কিছু পরীক্ষা নীরীক্ষা করে ছয় মাস – এক বছর পরপর ডাক্তারের কাছে অাসতে হয়। একবার যদি জরায়ুর ক্যান্সার ছড়িয়ে পড়ে তাহলে কিন্তু সারা শরীরে এমনকী ব্রেনেও পরবর্তী পভাব রেখে যেতে পারে।

জরায়ু মুখের ক্যান্সারটা খুব কমন ক্যান্সার। যেসব কারণে মেয়েরা এই ক্যান্সারে অাক্রান্ত হয় তা থেকে নিজেকে রক্ষা করতে পারলে এই ক্যান্সার অনেকখানি প্রতিরোধ করা সম্ভব। অামি বলব, অাপনারা ভ্যাকসিনটা নিয়ে ফেলুন। ভ্যাকসিন শতভাগ না হলে ৭০-৮০% কাভারেজ দেয়। যেসব মায়েদের বিয়ে হয়েছে তিন বছর, এমন মায়েদের বলি, অাপনারা অন্তত প্রতি তিন বছর পরপর ভায়া টেস্ট করুন। জরায়ু মুখ সুরক্ষিত রাখুন।

এই রোগ প্রতিরোধ করার জন্য অব্যশই সচেতনা তৈরি করতে হবে। সচেতনাই পারে জরায়ু মুখে ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে।

লেখক: কনসালটেন্ট, ইমপালস হাসপাতাল। নারী রোগ ও প্রসূতি বিশেষজ্ঞ।

addnavunder

Related posts

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Headerbaner