খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে ভাঙনের মুখে বিএনপি

Breaking News: প্রধান সংবাদ বাংলাদেশ রাজনীতি

বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে ভাঙনের মুখে দলটি। একটি পক্ষ যেকোনো মূল্যে খালেদা জিয়ার মুক্তি চায়। আরেকটি পক্ষ আন্দোলনের বা আইনি প্রক্রিয়ায় মুক্তি চাই। এই দুই পক্ষের দ্বন্দ্বে দলের শীর্ষ নেতারা বিভক্ত হয়ে পড়ছেন বলে জানা গেছে।

একটি পক্ষে রয়েছেন-খালেদা জিয়ার ভাই সাইদ ইস্কান্দার। আরেকটি পক্ষে রয়েছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।

সাইদ ইস্কান্দার খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য যেকোনো শর্ত মানতে রাজি। খালেদা জিয়াকে প্যারোলে মুক্ত করতে তৎপরতা চালাচ্ছেন। এ জন্য তিনি সরকারের একট মহলের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন বলে জানা গেছে। আর খালেদা জিয়ার সঙ্গে কথা বলে তিনি এই কাজ চালাচ্ছেন বলে তার পক্ষের একাধিক নেতা জানিয়েছেন। আরও জানা গেছে, খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমানও খালেদা জিয়ার মুক্তি চান যেকোনো মূল্যে।

অপর পক্ষে মির্জা ফখরুল জানিয়েছেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি তারা চান কিন্তু প্যারোলে না। স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় মুক্তি চান। তিনি দাবি করেন, খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করে জানান, খালেদা জিয়া প্যারোলে মুক্তি চান না।

মির্জা ফখরুল আরও বলেন, প্যারোলে মুক্তি নিলে সরকারের শর্ত মেনে নিয়ে তাকে মুক্তি পেতে হবে। অর্থাৎ দোষ স্বীকার করেই মুচলেখা দিয়ে মুক্তি পেতে হবে। এটাতে খালেদা জিয়ার ইমেজ নষ্ট হবে। দেশবাসীর কাছে তার গ্রহণযোগ্যতা হারাবে। তাই সরকারের শর্ত বা প্যারোলের পক্ষে নন-ফখরুল পন্থি নেতাকর্মীরা।

আর সাইদ ইস্কান্দারের দাবি, খালেদা জিয়া জেল থেকে বের হয়ে আসলে দলকে সংগঠিত করে আন্দোলন করবে। তাই প্যারোলে হলেও খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করছেন এই নেতা। এজন্য তিনি বিএনপির একাধিক নেতার সঙ্গে ইতোমধ্যে কথা বলেছেন। এখন ও কথা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে জানা গেছে, বিএনপি থেকে নির্বাচিত ছয়জন সংসদ সদস্য শপথ নিতে চান। তাদের এই মাসের ৩০ তারিখের মধ্যে শপথ নিতে হবে। তা না হলে তাদের আর শপথ নেওয়ার সুযোগ থাকবে না। আর এই শপথ নিয়েও দেখা দিয়েছে দলের মধ্যে বিভেদ। সব মিলে এই বড় দলটি আবার ভাঙনের মুখে। ২০০৬ ও ২০০৭ সালে ভাঙনের মুখে পড়েছিল। আবার সেই ভাঙনের সুর। এখন দেখার অপেক্ষায় দশের মানুষ কি হয় দলটির মধ্যে।

বিএনপির মাহসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নিয়ে সুলতান মোহাম্মদ মনসুর জাতির সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। সুলতান মনসুর ঐক্যফ্রন্টের তেমন কোনও নেতা ছিলেন না। তার শপথ নেওয়ায় ঐক্যফ্রন্টের কোনও ক্ষতি হবে না। এছাড়া বিএনপি আগের সিদ্ধান্তেই রয়েছে। আমরা সংসদে যাচ্ছি না। এ কথা কিছুদিন আগেই মির্জা ফখরুল বলেছিলেন। এবার যদি তিনি নিজেই শপথ নেন তাহলে কি বলবে নেতাকর্মীরা এমনটাই ভাবনছেন দলের নেতাকর্মীরা।

Spread the love

1 thought on “খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে ভাঙনের মুখে বিএনপি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *