গাইবান্ধায় প্লাস্টিকের চাল পাওয়ার খবর ভিত্তিহীন : কৃষিমন্ত্রী

Breaking News: জাতীয় প্রধান সংবাদ বাংলাদেশ সারাদেশ

কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, গাইবান্ধায় প্লাস্টিকের চাল পাওয়ার খবর ভিত্তিহীন। বুধবার বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলারের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে জানা গেছে, গাইবান্ধায় প্লাস্টিকের চাল বিক্রির অভিযোগে বিভিন্ন চালের দোকানে অভিযান চালিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। এ সময় প্লাস্টিকের কৃত্রিম চাল জব্দও করা হয়।

কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, এটার একদমই ভিত্তি নেই। এই ধরনের নিউজ পেয়ে মিডিয়া খুব তাড়াতাড়ি ইয়ে (ছড়িয়ে) করে। আমি ডিসির সঙ্গে কথা বলেছি, আমার অ্যাগ্রিকালচারের ডেপুটি ডাইরেক্টরের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা সেখানে গিয়েছে, সেই চাল এনেছে, রান্না করেছে, মুড়ি বানিয়েছে। সেটা কোনো ক্রমেই প্লাস্টিকের চাল নয়, এটা বাস্তব সম্মত নয়।

কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক আরও বলেন, দেশে চাল এখন সারপ্লাস (উদ্বৃত্ত), চাষীরা বিক্রি করতে পারছে না। আমি আমার রিসিপশনে (সংবর্ধনা) টাঙ্গাইলে গিয়েছি, হাজার হাজার মানুষ টাঙ্গাইল শহরে। এক দাবি- চালের দাম নেই, আমরা কৃষকরা শেষ হয়ে গেলাম। এ সম্পর্কে কৃষিমন্ত্রী আমাদের কিছু বলুন। আমি যখন বলেছি, মানুষ হাততালিতে ফেটে পড়েছে। কাজেই প্লাস্টিকের চাল, কোথায় থেকে এটা সম্ভব নাকি? কেন খাওয়াবে?

তাহলে এটা কারা করছে -জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, গাইবান্ধাতে এটা কারা করছে, করে মিডিয়াতে দিয়েছে।

সেই চালের কিছু নমুনা ঢাকাতেও পাঠানো হয়েছে -এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমরা সেগুলোও দেখব। ওখানে আমাদের কৃষিবিদরা দেখেছে। প্লাস্টিকের চাল এটা ইম্পসিবল, এটা হতেই পারে না।

কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক আরও বলেন, এ দেশে বলে কাছিমের ডিম! আচ্ছা, এটা কি সম্ভব? গত আড়াই বছর ধরে পাঁচ টাকা ৩০ পয়সা একটা ডিমের তৈরি খরচ, সেটি বিক্রি করেছে সাড়ে চার টাকায়। কালকেও আলাপ হলো, একদিনের একটা মুরগির বাচ্চা ন্যূনতম ৩০ থেকে ৩৫ টাকা খরচ, ১৮ থেকে ১৯ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পোলট্রি খামারিরা একেবারে শেষ হয়ে গেল। এগুলো আপনারা বলুন। ৮ শতাংশ ইন্টারেস্ট ছিল প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগের ফলেও ১২-১৩ শতাংশ করে দিয়েছে। পোলট্রি ফার্ম-ডেইরি ফার্ম কী করে চলবে? তারা মুরগি বিক্রি করতে পারে না। তেলাপিয়া মাছ ৬০-৭০ টাকা ফার্ম গেট প্রাইজ। কাজেই এগুলো অবাস্তব।

কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বাংলাদেশ দানা জাতীয় খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। এখন আমাদের চ্যালেঞ্জ হলো কী করে মানুষকে পুষ্টি সম্মত খাওয়াতে পারি এবং কীভাবে নিরাপত্তা বাড়ে। নির্বাচনী ইশতেহারেও এটাকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।

কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমাদের দেশের ছেলেরা সবাই স্কুলে যাচ্ছে। তাদের কর্মসংস্থানে সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। কৃষিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তিগত সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *