December 13, 2018

addnavunder

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ধবল ধোলাই করলো বাংলাদেশ

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ধবল ধোলাই করলো বাংলাদেশ

দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের দুটিতে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। ফলে এই সিরিজে ধবল ধোলাই করলো বাংলাদেশ ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। ঢাকা টেস্টে ইনিংস ও ১৮৪ রানে জয় পেয়েছে টাইগাররা। ফলে দুই ম্যাচ সিরিজের দুটিতেই চরম ভাবে হারালো ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। আগের ম্যাচে তিন দিনে জয় পায় এ ম্যাচেও তিন দিনেই জয় তুলে নিলো সাকিব বাহিনীরা।

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের করা ৫০৮ রানের জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে বিপাকে পড়ে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শুরু থেকেই স্পিন চক্করে পড়ে চোখে যেন সরষে ফুল দেখেন তারা। ৩৯৭ রান পিছিয়ে থেকে মাত্র ১১১ রানে অলআউট হয়েছে ক্যারিবীয়ানরা। ফলে ফলোঅনে পড়ে আবারও ব্যাটিংয়ে নামে উইন্ডিজ।
আর দ্বিতীয় ইনিংসেও টাইগারদের সামনে দাড়াতে পারেনি তারা।
শুরতেই সাকিব এলবির ফাঁদে ফেলে সাজঘরে ফেরান ক্যারিবীয়ান দলপতি কার্লোস ব্রাথওয়েইটকে। দলীয় ২ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারায় সফরকারীরা। দলীয় ১৪ রানের মাথায় মিরাজ স্ট্যাম্পিংয়ের ফাঁদে ফেলে ফিরিয়ে দেন কাইরন পাওয়েলকে (৬)। প্রথম ইনিংসে মেহেদি মিরাজ ক্যারিয়ার সেরা বোলিং করে একাই তুলে নেন সাতটি উইকেট। সাকিব নেন তিনটি উইকেট।
এদিকে তৃতীয় দিনের প্রথম সেশনের শুরুতে মিরাজ ফিরিয়ে দেন শিমরন হেটমেয়ারকে (৩৯)। নিজের বলে নিজেই দুর্দান্ত ক্যাচ নেন মিরাজ। দলীয় ৮৬ রানের মাথায় উইন্ডিজরা ষষ্ঠ উইকেট হারায়। স্কোরবোর্ডে আর দুই রান যোগ হতেই আবারো আঘাত হানেন মিরাজ। এবার ফিরিয়ে দেন দেবেন্দ্র বিশুকে। এর মধ্যদিয়ে নিজের পঞ্চম উইকেট পান মিরাজ। সাকিব নতুন ব্যাটসম্যান কেমার রোচের সহজ ক্যাচ তালুবন্দি করতে পারেননি। পরের ওভারে মিরাজ তার ষষ্ঠ উইকেট তুলে নেন, ফিরিয়ে দেন কেমার রোচকে। দলীয় ৯২ রানের মাথায় উইন্ডিজ তাদের অষ্টম উইকেট হারায়। দলীয় ১১০ রানে শেন ডরউইচকে (৩৭) এলবির ফাঁদে ফেলেন মিরাজ। শেষ ব্যাটসম্যান শিরমন লুইসকে এলবির ফাঁদে ফেলেন সাকিব। মিরাজ সাতটি, সাকিব তিনটি উইকেট পান। এটাই মিরাজের ক্যারিয়ার সেরা টেস্ট বোলিং।
বাংলাদেশ একাদশ :
সাদমান ইসলাম, সৌম্য সরকার, মুমিনুল হক, মোহাম্মদ মিঠুন, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, লিটন দাস, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদি হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম এবং নাঈম হাসান।
ওয়েস্ট ইন্ডিজ একাদশ :
ক্রেইগ ব্রাথওয়েইট, কাইরন পাওয়েল, শাই হোপ, শিমরন হেটমেয়ার, সুনীল অ্যামব্রিস, রোস্টন চেজ, শেন ডরউইচ, শিরমন লুইস, দেবেন্দ্র বিশু, কেমার রোচ এবং জোমেল ওয়ারিকান।

addnavunder

Related posts

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Headerbaner